ঢাকা, বুধবার   ১৭ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ৪ ১৪৩১

কবিতা : আমি পেয়েছি যে পতাকা

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৫:০২, ১ এপ্রিল ২০২৪  

কবিতা : আমি পেয়েছি যে পতাকা

কবিতা : আমি পেয়েছি যে পতাকা

আমি পেয়েছি এক সুন্দর পতাকা!
সবুজের বুকে লাল সূর্য আঁকা
এ পতাকা আমার গৌরব—আমার অহংকার
প্রতিজ্ঞাবদ্ধ আমি এর মর্যাদা রক্ষার।
এ পতাকার জন্য রক্ত দিয়েছে কত বীর বাঙালি
সম্ভ্রম খুইয়েছে কত কন্যা-ভগ্নি, জায়া-জননী!

মনে পড়ে যায় সেদিনের কত কথা
মনে পড়ে বাঙালির অপূর্ব বীরত্ব গাথা!
মনে পড়ে মহান নেতার কথা—তাঁর বলিষ্ঠ উচ্চারণ,
‘তোমরা তৈরি থাকো, ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোল সবার
আমি যদিও না পারি আর হুকুম দেবার—
উদ্যত থাকুক তোমাদের লাঠি আর শানিত তলোয়ার
শত্রুর বুকে হানো কঠিন আঘাত বজ্রসম
চূর্ণ কর তাদের সকল লালসা আর দম্ভ!’

আমরা সফল হয়েছি, দেশ হয়েছে হানাদার মুক্ত
উড়ছে সেই লাল-সবুজ পতাকা সর্বত্র!
হে মহান নেতা—পবিত্র এ পতাকা তুমিই আমাদের হাতে দিয়েছো তুলে
পতাকা উড়ছে স্বাধীন বাংলাদেশের মুক্ত আকাশে!
তুমি চলে গেছ অনেক দূরে অনন্ত লোকে
তোমার অনেক কাজ—অনেক স্বপ্ন পিছে ফেলে!
বেঈমান ঘাতকের বুলেট ধূলিসাৎ করে দিলো সকল স্বপ্ন তোমার
থমকে গেল পবিত্র ইচ্ছেগুলো—বাংলাদেশকে সুন্দর করে সাজাবার।
সরল তুমি সকলকে কত বিশ্বাস করতে!
কোন বাঙালি আঘাত করবে তোমায়
এ কথা পারোনি কখনো মানতে।
তাই তুমি ধানমন্ডির বাসা চাওনি কখনো ছাড়তে
চেয়েছিলে সাধারণের হয়ে তাদের মাঝে থাকতে,
চেয়েছিলে তোমার শখের পারাবাতগুলোর দেখভাল করতে!
ওরা যে শাস্তি দূত, তুমি বিশ্বাস করতে—
ওরা চায় তোমার সান্নিধ্যে থাকতে!
তবুও তোমায় যেতে হলো দূরে শত্রুর বুলেটে
অকুতোভয় তুমি অভিমানে বুক পেতে দিলে;
তোমার শাস্তির পারাবাতগুলো না জানি কত কাঁদলে
কাঁদলে মর্মাহত বাঙালি জাতি সারাদেশে।

তোমার যে বাড়ি ধারণ করে আছে তোমার শত স্মৃতি
সংরক্ষণ করেছে সে তোমার পবিত্র রক্তের দাগ—
আরও কত অমূল্য সামগ্রী!
বুকে তার জ্বলছে কত বিষ-জ্বালা
তবুও সে হয়েছে ধন্য! হয়ে আছে আজও
‘ধানমন্ডির ৩২ নম্বর শহীদ সংগ্রহশালা’।
জাতির জনক হে নেতা মহান
আমরা ভুলিনি তোমার অমর কীর্তি অসাধারণ—
মুক্তিকামী তুমি অপোসহীন, সংগ্রাম করছো আজীবন
জাতি সদা শ্রদ্ধাভরে করে তোমার কথা স্মরণ!

সর্বশেষ
জনপ্রিয়