ঢাকা, রোববার   ০২ অক্টোবর ২০২২ ||  আশ্বিন ১৬ ১৪২৯

ঈদের আগেই উদ্বোধন হবে ঝালকাঠির কচুয়া-বেতাগী ফেরি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৩:৪৯, ৭ জুন ২০২২  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ঝালকাঠির কাঠালিয়া উপজেলার কচুয়া-বেতাগী নৌপথে ফেরি চলাচল ঈদের আগেই উদ্বোধন করা হবে বলে জানা গেছে। 

বিষখালী নদীর দুই পাড়ে বরগুনার বেতাগী ও ঝালকাঠির কাঠালিয়া উপজেলার কচুয়া গ্যাংওয়ে নির্মাণকাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। ফেরিও পৌঁছে গেছে ঘাটে। গ্যাংওয়ের কাজ শেষ হলেই ফেরিটি উদ্বোধন করা হবে। 

ফেরি চালু হলে কমে যাবে দূরত্ব। এতে দক্ষিণাঞ্চলের, বিশেষ করে পটুয়াখালী, কুয়াকাটা, বরগুনা, বেতাগী, কাঁঠালিয়া, রাজাপুর, ঝালকাঠি, বরিশাল, বেকুটিয়া, খুলনা, পিরোজপুর, বাগেরহাট, সাতক্ষীরা, গোপালগঞ্জসহ বিভিন্ন এলাকায় খুব সহজে যাতায়াত করতে পারবেন যাত্রীরা।

জানা গেছে, ঝালকাঠি সড়ক বিভাগের অধীনে কাঠালিয়ার বীণাপানি, কচুয়া, বেতাগী, মির্জাগঞ্জ, পটুয়াখালী পর্যন্ত ছয় কিলোমিটার নৌপথে এ নতুন ফেরিঘাট স্থাপন করা হয়েছে। 

গত ৩১ মে এই নৌপথে যানবাহনের টোলের পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়েছে। ট্রেইলার ২৫০, হেভি ট্রাক ২০০, মিডিয়াম ট্রাক ১০০, বড় বাস ৯০, মিনি ট্রাক ৭৫, কৃষিকাজে ব্যবহৃত যানবাহন ৬০, মিনিবাস-কোস্টার ৫০, মাইক্রোবাস ৪০, ফোর হুইল যানবাহন ৪০, সিডান কার ২৫ এবং ৩-৪ চাকার মোটরাইজড যান ১০ ও মোটরসাইকেল, সাইকেল, রিকশা, ভ্যান ৫ টাকা হারে টোল নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

বেতাগী স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক মো. মহসীন খান বলেন, আমার বাড়ি কাঠালিয়ায় হলেও বেতাগী স্কুল অ্যান্ড কলেজে প্রভাষক হিসেবে চাকরি করি। তাই প্রতিদিনই বিষখালী নদী পার হয়ে বেতাগী যেতে হয়। এখন ফেরি হওয়ায় যাতায়াত ব্যবস্থা আরও সহজ হবে।

পশ্চিম ছিটকী স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, কাঠালিয়ার পশ্চিম ছিটকী স্কুল অ্যান্ড কলেজে যেতে আমাকে প্রতিদিন কচুয়া খেয়া পার হতে হয়। অনেক সময় খেয়ার জন্য সঠিক সময় কলেজে যেতে পারি না। এখন এখানে ফেরি হওয়ায় নির্ধারিত সময় কলেজে যেতে পারব।

স্থানীয় ইউপি সদস্য এইচএম নাসির উদ্দিন আকাশ বলেন, পার্শ্ববর্তী উপজেলা বেতাগীর সঙ্গে কচুয়ার যোগাযোগের একমাত্র উপায় খেয়া পারাপার। এখন ফেরি সার্ভিস চালু হলে খুব সহজেই কুয়াকাটা পর্যটনকেন্দ্র, আমতলী, বরগুনা জেলাসহ বিভিন্ন নৌপথে গাড়ি নিয়ে যাতায়াত করতে পারবে এ অঞ্চলের মানুষ।

শৌলজালিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. মাহমুদ হোসেন রিপন জানান, শৌলজালিয়ার কচুয়া ফেরিঘাটের গ্যাংওয়ের কাজ এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। তবে বেতাগী অংশের গ্যাংওয়ের কাজ বাকি রয়েছে। বেতাগী অংশে গ্যাংওয়ের কাজ শেষ হলেই ফেরি চলাচল শুরু হবে।

ঝালকাঠি সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী শেখ নাবিল হোসেন বলেন, কচুয়া-বেতাগীতে ফেরি চলাচলের জন্য এরই মধ্যে ফেরি ও ফেরি চলাচলের গ্যাংওয়ে ঘাটে চলে এসেছে। কচুয়া অংশে ফেরির গ্যাংওয়ের কাজ শেষ হয়েছে। তবে  বেতাগী অংশের গ্যাংওয়ের কাজ বাকি রয়েছে। আশা করি, ঈদের আগেই এই নৌপথে ফেরি সার্ভিস উদ্বোধন করা হবে।

সর্বশেষ
জনপ্রিয়